আল্লাহ পৃথিবী, গাছপালা, প্রাণিজগত আগে সৃষ্টি করেছেন!

আল্লাহ পৃথিবী, গাছপালা, প্রাণিজগত আগে সৃষ্টি করেছেন, এরপরে সপ্ত আকাশ বা মহাকাশ।
বলুন, তোমরা কি সে সত্তাকে অস্বীকার কর যিনি পৃথিবী সৃষ্টি করেছেন দু’দিনে এবং তোমরা কি তাঁর সমকক্ষ স্থীর কর? তিনি তো সমগ্র বিশ্বের পালনকর্তা।
তিনি পৃথিবীতে উপরিভাগে অটল পর্বতমালা স্থাপন করেছেন, তাতে কল্যাণ নিহিত রেখেছেন এবং চার দিনের মধ্যে তাতে তার খাদ্যের ব্যবস্থা করেছেন-পূর্ণ হল জিজ্ঞাসুদের জন্যে।
অতঃপর তিনি আকাশের দিকে মনোযোগ দিলেন যা ছিল ধুম্রকুঞ্জ, অতঃপর তিনি তাকে ও পৃথিবীকে বললেন, তোমরা উভয়ে আস ইচ্ছায় অথবা অনিচ্ছায়। তারা বলল, আমরা স্বেচ্ছায় আসলাম।
অতঃপর তিনি আকাশমন্ডলীকে দু’দিনে সপ্ত আকাশ করে দিলেন এবং প্রত্যেক আকাশে তার আদেশ প্রেরণ করলেন। আমি নিকটবর্তী আকাশকে প্রদীপমালা দ্বারা সুশোভিত ও সংরক্ষিত করেছি। এটা পরাক্রমশালী সর্বজ্ঞ আল্লাহর ব্যবস্থাপনা।
কুরআন ৪১ঃ৯-১২
তোমাদের জন্য তিনি ভূ-মন্ডলের যাবতীয় বস্তু সৃষ্টি করিয়াছেন, অতঃপর নভমন্ডলের যাবতীয় বস্তু সৃষ্টি করিয়াছেন, অতঃপর নভোমন্ডলের প্রতি দৃষ্টি দিয়া ইহাকে সাত স্তরে বিভক্ত করিয়াছেন, তিনিই সকল বস্তু সম্পর্কে পরিজ্ঞাত।
কুরআন ২ঃ২৯

জবাব:

২:২৯ তিনিই সে সত্ত্বা যিনি সৃষ্টি করেছেন তোমাদের জন্য যা কিছু জমীনে রয়েছে সে সমস্ত। তারপর(Then) তিনি মনোসংযোগ করেছেন(Turned) আকাশের প্রতি। বস্তুতঃ তিনি তৈরী করেছেন সাত আসমান। আর আল্লাহ সর্ববিষয়ে অবহিত।
২:২৭-২৯ তোমাদের সৃষ্টি অধিক কঠিন না আকাশের, যা তিনি নির্মাণ করেছেন? একে উচ্চ করেছেন ও সুবিন্যস্ত করেছেন। তিনি এর রাত্রিকে করেছেন অন্ধকারাচ্ছন্ন এবং এর সূর্যোলোক প্রকাশ করেছেন।
 
আয়াত ২:২৯ বলা হয়নি যে, আল্লাহ পৃথিবী আগে সৃষ্টি করেছেন।আসুন আয়াতটা আবার দেখি
 
তিনিই সে সত্ত্বা যিনি সৃষ্টি করেছেন তোমাদের জন্য যা কিছু জমীনে(earth) রয়েছে সে সমস্ত। তারপর(Then) তিনি মনোসংযোগ করেছেন (Turned) আকাশের (Universe) প্রতি। বস্তুতঃ তিনি তৈরী করেছেন সাত আসমান। আর আল্লাহ সর্ববিষয়ে অবহিত।
“He it is Who created for you all that is in the “ard” (earth). Then turned He to the “samawaat” (universe), and fashioned it as seven universes. And He is knower of all things.”
 
তিনি মনোসংযোগ করেছেন আকাশের প্রতি (then He turned to the samawaat) তার মানে আগেই আকাশের (universe) অস্তিত্ব ছিল তা না হলে কী করে আকাশের (univers) প্রতি মনোসংযোগ (turned) করলেন।

যদি কোন কিছুর অস্তিত্বই না থাকে তবে কী করে তার কাছে মনোসংযোগ (turned) করা যায়?
 
তাই আয়াত ২:২৯ প্রমাণ করে না যে আল্লাহ পৃথিবী আগে সৃষ্টি করেছেন।